বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০৩:৫২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
গাবতলীর কাগইল ইউপি উদ্যোগে ক্রীড়া সামগ্রী ও দুস্থদের মাঝে টিউবয়েল বিতরন রাষ্ট্রদূত হলেন নৌবাহিনীর নাজমুল হাসান তিনটি আইনে রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষর টেক্সটাইল মিল ফের চালুতে উৎসাহিত করা হবে বিদেশি বিনিয়োগ নতুন আইনে প্রথম দিনেই ৮৮ মামলা, জরিমানা সোয়া লাখ বঙ্গবন্ধু-ভাসানীর সম্মান ক্ষুন্ন করা যাবে না -মোমিন মেহেদী মেস সংঘের সমাবেশে বক্তারা বাড়ি ভাড়া বৃদ্ধি বন্ধে আইনের প্রয়োগ প্রয়োজন দুর্নীতি-ধর্মব্যবসা সমানভাবে বাড়ছে -মোমিন মেহেদী পূবাইলে ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী সুজন গ্রেফতার টঙ্গীতে রোবট তৈরি করলো নিউবেস্নান স্কুলের শিক্ষার্থীরা টঙ্গীতে তুরাগ নদ থেকে গলিত লাশ উদ্ধার দূর্ঘটনায় আহত গাবতলী বিএনপি নেতা ফুল মিয়া’কে দেখতে যান ছাত্রদল নেতৃবৃন্দ পাঁচবার জিডি করে শেষমেশ খুন মুজিববর্ষের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা মোদি আয়কর মেলায় দেয়া হচ্ছে যেসব সেবা টঙ্গীতে বস্তি উচ্ছেদ না করার দাবিতে ঝাড়ু মিছিল বস্তির নেতাদের উঠিয়ে নিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে লিখিত আদায় পুলিশের টঙ্গীর সিরাজ উদ্দিন সরকার বিদ্যানিকেতন এন্ড কলেজে শিক্ষক অভিভাবকদের মতবিনিময় সভা টঙ্গীতে নেদায়ে ইসলামের উদ্যোগে ঈদ-ই-মিলাদুন্নবীর বর্ণাঢ্য আনন্দ র‌্যালী পেঁয়াজ পচে যাচ্ছে কিন্তু বাজারে ছাড়ছে না : প্রধানমন্ত্রী ঘাট ত্যাগ করেই যেভাবে গর্জে উঠে ঈগল-৩ এর ডাইহাটসু
আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য আহসান উল্লাহ মাস্টার’র জন্মবার্ষিকীতে গভীর শ্রদ্ধাঞ্জলি

আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য আহসান উল্লাহ মাস্টার’র জন্মবার্ষিকীতে গভীর শ্রদ্ধাঞ্জলি

Spread the love

মৃণাল চৌধুরী সৈকত :
৯ নভেম্বর প্রখ্যাত শ্রমিক নেতা, শিক্ষক, মুক্তিযোদ্ধা এবং আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য আহসান উল্লাহ মাস্টার’র জন্মবার্ষিকীতে গভীর শ্রদ্ধাঞ্জলি।
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সদস্য হিসাবে আহসান উল্লাহ মাস্টার ১৯৯৬ ও ২০০১-এর জাতীয় সংসদে গাজীপুর-২ আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ছিলেন।
আহসান উল্লাহ মাস্টার ১৯৫০ সালের ৯ নভেম্বর তৎকালীন ঢাকা জেলার (বর্তমান গাজীপুর) পুবাইল ইউনিয়নের হায়দরাবাদ গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।
আহসান উল্লাহ শিক্ষাজীবন শুরু হয় নিজ গ্রামের হায়দরাবাদ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষাজীবন শেষ করে টঙ্গী উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হন তিনি। আহসান উল্লাহ মাস্টার ১৯৬৫ সালে এসএসসি পাস করে তৎকালীন কায়েদে আযম কলেজে (বর্তমান শহীদ সোহরাওয়ার্দী সরকারি কলেজ) একাদশ শ্রেণীতে ভর্তি হন।
১৯৭০ সালে ডিগ্রি পাস করার পর আহসান উল্লাহ মাস্টার নোয়াগাঁও এম এ মজিদ মিয়া হাইস্কুলে শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৭৭-১৯৮৪ সালে পর্যন্ত তিনি ওই বিদ্যালয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষক ও ১৯৮৪-২০০৪ সাল পর্যন্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব আমৃত্যু পর্যন্ত পালন করেনটা
আহসান উল্লাহ মাস্টার টঙ্গী শিক্ষক সমিতির সভাপতি হিসেবে সক্রিয় ছিলেন,
১৯৬২ সালে হামুদুর রহমান শিক্ষা কমিশন-এর বিরুদ্ধে ছাত্র আন্দোলনে যুক্ত হওয়ার মাধ্যমে রাজনীতিতে তার হাতেখড়ি। তখন তিনি ছাত্রলীগ করতেন। ১৯৬৬ সালে বঙ্গবন্ধু ঘোষিত বাঙালির মুক্তি সনদ ছয় দফা দাবি নিয়ে ছাত্রছাত্রীরা যখন রাজপথে, তখনো আহসান উল্লাহ মাস্টার আন্দোলনে অংশ নেন। ১৯৬৯ সালে ১১ দফার আন্দোলনেও সক্রিয় ছিলেন তিনি।
আহসান উল্লাহ মাস্টার ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে সাড়া দিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেন। মুক্তিযুদ্ধে যাওয়ার আগে তিনি পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে আটক ও নির্যাতিত হয়েছিলেন। ভারতের দেরাদুনের তান্দুয়া থেকে গেরিলা ট্রেনিং নিয়ে পুবাইল, টঙ্গী, ছয়দানাসহ বিভিন্ন জায়গায় গেরিলা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন।
১৯৭১ সালের ১৯ মার্চ জয়দেবপুরের ক্যান্টনমেন্টের বাঙালী সৈন্যদের নীরস্ত্র করতে ঢাকা থেকে আসা পাকিস্তানী বাহিনীকে ব্যারিকেড দিয়ে বাধা দেয়ার জন্য জনতাকে উদ্বুদ্ধ করার কাজে তার ভূমিকা উল্লেখযোগ্য।
আহসান উল্লাহ মাস্টার ১৯৮৩ সালের পুবাইল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধিত্ব করেন। স্থানীয় সরকার নির্বাচন থেকে শুরু করে জাতীয় সংসদ—প্রতিটি নির্বাচনে তিনি জয়ী হয়েছেন বিপুল ভোটে।
১৯৮৮ সালে পুবাইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে দ্বিতীয়বারের মতো নির্বাচিত হন। ১৯৯০ সালে গাজীপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।
জাতীয় শ্রমিক লীগের কার্যকরী সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। এর আগে তিনি ওই সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। এ ছাড়া আহসান উল্লাহ মাস্টার বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব লেবার স্টাডিজের (বিলস) চেয়ারম্যান ছিলেন।
তাঁর জ্যেষ্ঠ ছেলে যুব সমাজের অহংকার মো. জাহিদ আহসান রাসেল বর্তমানে জাতীয় সংসদের জনপ্রিয় এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী। ছোট ছেলে জাবিদ আহসান সোহেল বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত থাকা অবস্থায় দুরারোগ্য ব্যধিতে আক্রান্ত হয়ে অকালে মৃত্যু বরণ করেন । আহসান উল্লাহ মাস্টারের ছোট ভাই মো. মতিউর রহমান মতি গাজীপুর মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং ছোট বোন নাজমা হোসেন গাজীপুর মহানগর মহিলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদিকা ।
২০০৪ সালের ৭ মে একদল সন্ত্রাসী টঙ্গীর নোয়াগাঁও এমএ মজিদ মিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আহসান উল্লাহ মাস্টারকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করে।
তাঁর নাম অনুসারে ২০১৩ সালে টঙ্গীতে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার স্টেডিয়াম নির্মিত হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 jonotarbangla.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com