ArabicBengaliEnglishHindi

আনোয়ারায় পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের অনিয়ম, ভৌতিক বিল, গ্রাহক হয়রানি অভিযোগ


প্রকাশের সময় : সেপ্টেম্বর ১২, ২০২২, ৭:০২ অপরাহ্ন / ২৩৯
আনোয়ারায় পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের অনিয়ম, ভৌতিক বিল, গ্রাহক হয়রানি অভিযোগ

আনোয়ারা (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি ->>
চট্টগ্রামে আনোয়ারার উপজেলায় পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের বিরুদ্ধে অভিযোগে পাহাড় ভুক্তভোগী গ্রাণকদের। কয়েক মাস যাবৎ লাগামহীন লোডশেডিং, কোন অভিযোগ ছাড়া বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন। সেবা পেতে টাকা জমা দিয়েও সেবা মিলছে না। মনগড়া ভৌতিক বিল করাসহ গ্রাহকদের হয়রানি করা হচ্ছে।

বিদ্যুৎ–সংকট মোকাবিলায় দেশজুড়ে এলাকাভিত্তিক লোডশেডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। জনগণের ভোগান্তি কমাতে সরকার এলাকা ভিত্তিক ২ ঘন্টা করে লোডশেডিংয়ের উদ্যােগ নিলে ও সঠিকভাবে বাস্তবায়ন হচ্ছে না পল্লী বিদ্যুৎ অফিস। কোন প্রকাশ মাইকিং ছাড়া উপজেলা বিভিন্ন স্থানে দীর্ঘ ৫- ৮ ঘন্টা লোডশেডিং দেওয়া হচ্ছে। ২৪ ঘন্টার মধ্যে ৫-৬ ঘন্টারও কম সময় বিদ্যুৎ থাকে বলে অভিযোগ ভুক্তভোগী গ্রাহকদের।

বৈরাগ ইউনিয়নের গুয়াপঞ্চক গ্রামের মোঃ সোলাইমান নামে এক ব্যক্তি জানান, কোন প্রকার অভিযোগ ছাড়া বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের এক কর্মচারী বিরুদ্ধে।পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের যোগাযোগ করার হলে কোন প্রকার অভিযোগ দেখাতে পারিনি। তবে বিদ্যুৎ পুনঃসংযোগ পেতেও গুনতে হচ্ছে মোটা অঙ্কের টাকা। কোন অভিযোগ ছাড়া বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করছেন, আবার কিসের জরিমানা দিতে হবে। পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের দায়িত্বরত কর্মকর্তা বলেছেন জরিমানা দিলে আগামীকাল বিকাল মধ্যে পুনঃসংযোগ দেওয়া হবে। নিরুপায় হয়ে ৬৯০ টাকা জরিমানা দিয়ে বিদ্যুৎ অফিসের প্রত্যকদিন ঘুরাঘুরি পড়ে ৮ দিন পড়ে মিটারের পুনঃসংযোগ মিলছে।

বৈরাগ ইউনিয়নের মোশাররফ আলী নামে এক ব্যক্তি জানানে, প্রতি মাসে তার বিল আসে ৫-৭’শ টাকা পর্যন্ত বিল উঠে। কিন্তু আগস্ট মাসে বিল এসেছে ৩ হাজার টাকা। সেখানে বিল এসেছে তার চেয়ে ৬ গুণ।

আরমান উদ্দিন নামে ছাত্র জানান, আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হবে এসএসসি পরীক্ষা আমাদের এলাকায় যে পরিমাণ লোডশেডিং হচ্ছে এতে ছাত্র-ছাত্রীদের পড়ালেখা নানা দিক সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে অভিযোগকারী হটলাইন সেবায় কোনো বিষয়ে জানতে গেলে গ্রাহকদের সঙ্গে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের খারাপ আচরণ করারও অভিযোগ রয়েছে।

আনোয়ারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রোগীদের অভিযোগ লোডশেডিং কারণে চিকিৎসা পেতে হিমসিম খেতে হচ্ছে। তীব্র গরম এবং চিকিৎসকদের দেওয়া রোগীদের বিভিন্ন পরীক্ষা লোডশেডিং জন্য করতে পারতেছে। এই বিষয়ের
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচএ) ডা. মামুনুর রশীদ’র জানান, লোডশেডিং সারা বাংলাদেশের সমস্যা,আমাদের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগীদের কথা চিন্তা করে জেনারেটর চালু করার জন্য সিএসডিতে চিঠি দেওয়া হয়েছে। মোবাইল নাম্বারটা যোগাযোগ করা হয়েছে এখন পর্যন্ত কোন লোকজন আসেনি।লোডশেডিং জন্য আমাদের ও কাজ করতে সমস্যা হবে। লোডশেডিং জন্য তীব্র গরম এবং চিকিৎসা সমস্যা হচ্ছে তাই আইপিএস সংযোগ দিয়ে কোন রকম স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বাতিগুলো জ্বালিয়ে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হচ্ছে।

এব্যাপারে আনোয়ারা জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মুহাম্মদ জসীম উদ্দীনের মুঠোফোনে একাধিক ফোন করে সংযোগ পাওয়া যায়নি।সাংবাদিকদের মুঠোফোন রিসিভ করা অভিযোগ ডিজিএমের বিরুদ্ধে।