ArabicBengaliEnglishHindi

কালিয়াকৈরে সড়ক নির্মানে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার


প্রকাশের সময় : জুলাই ১৯, ২০২২, ৬:৩৬ অপরাহ্ন / ১৭৬
কালিয়াকৈরে সড়ক নির্মানে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি ->>
গাজীপুরের কালিয়াকৈরে সড়ক নির্মানের কাজে নিন্মমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফলে এবার বর্ষা মৌসুমেই সড়কটি ভেঙ্গে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। স্থানীয়দের বাধা উপেক্ষা করে নিন্মমানের কাজ করায় এক মেম্বারকে লাঞ্ছিত করেছে ক্ষুব্দ লোকজন। মানসম্মত টিকসই সড়ক নির্মান করার জন্য দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

এলাকাবাসী ও ইউনিয়ন পরিষদ সূত্রে জানা গেছে, কালিয়াকৈর উপজেলার আটাবহ ইউনিয়নে একটি প্যাকেজে চার এলাকায় চারটি গ্রামীণ সড়ক এইচবিবি দ্বারা উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করছে কালিয়াকৈর উপজেলা পরিষদ। প্রায় ৭১ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা ব্যয়ে ওই কাজটি পান মেসার্স তানিয়া এন্টারপ্রাইজ নামে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। পরবর্তিতে সাব-ঠিকাদার হিসেবে ওই কাজটি নেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান।

ওই চারটি সড়কের মধ্যে দরবাড়িয়া কবিরপুর মেইন সড়ক হতে চাতৈলভিটি আসমান মুন্সীর বাড়ির অভিমুখে সড়কটির উন্নয়ন কাজ চলছে। উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) অফিসের অধীনে ওই উন্নয়ন কাজের দেখবাল করছেন ওই ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য (মেম্বার) নজরুল ইসলাম। নিন্মমানের সামগ্রী ব্যবহার করে উন্নয়ন কাজ করায় কয়েক দফায় বাধা দিয়েছেন স্থানীয় লোকজন।

কিন্তু তাদের বাধা উপেক্ষা করে নিন্মমানের কাজ করায় গত দুদিন আগে ক্ষুব্দ লোকজনের তুপের মুখে পড়েন ওই মেম্বার। এসময় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের পিএস হিসেবে খ্যাত সিরাজুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে ওই মেম্বারকে মারধরসহ লাঞ্ছিত করার অভিযোগ উঠেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, ওই সড়কের কাজটি মুল ঠিকাদারের কাছ থেকে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সাব ঠিকাদার হিসেবে কাজ করছেন। চেয়ারম্যানই যখন ঠিকাদার, তখন উন্নয়ন কাজে অনিয়ম তো হবেই। যার কারণে আর কেউ মুখ খোলার সাহস পায় না। চেয়ারম্যানের পিএস’ও মেম্বারকে মারধর করেছে। ওই সড়কের অনিয়মের বিষয়ে স্থানীয় আমির আলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি অভিযোগ দিয়েছেন।

চেয়ারম্যানের পিএস নয় দাবী করে অভিযুক্ত সিরাজুল ইসলাম জানান, রাস্তায় বালু কম দেওয়ার কথাটি বলায় মেম্বার আমার সাথে খারাপ আচারণ করে। তাই তাকে বকাঝকা করেছি। কিন্তু মেম্বারকে মারধর করা হয়নি।
অনিয়মের কথা অস্বীকার করে স্থানীয় ইউপি সদস্য (মেম্বার) নজরুল ইসলাম জানান, রাস্তায় বালু বিছানোকে কেন্দ্র করে সিরাজুল আমার সাথে খারাপ আচারণ করেছে।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সাখাওয়াত হোসেন শাকিল মোল্লা জানান, সরেজমিনে গিয়ে নিন্মমানের ইট-বালু ব্যবহার করছে। পরে ভাল ইট-বালু দিয়ে কাজ করার জন্য বলা হয়েছে। তবে সিরাজুল আমার মেম্বারকে মারছে কিনা? তা আমার জানা নেই। এছাড়া ওই কাজটি আমার বাবা (সাবেক চেয়ারম্যান) ভাল কাজ করার জন্য নিয়েছিলেন। কিন্তু তাঁর মৃত্যুর পর আমি চেয়ারম্যান হয়েছি। তাই স্থানীয় মেম্বারকে দিয়ে সে কাজগুলো শেষ করার চেষ্টা করছি।

উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) বিপ্লব পাল জানান, নিন্মমানের সামগ্রী দিয়ে সড়ক নির্মানের কোন সুযোগ নেই। অনিয়মের খবর পেয়ে কাজটি আপাতত বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া কাজে কোন প্রকার বি-গ্রেডের ইট ব্যবহার করা হলে তা তুলে ফেলা হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাজওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদ জানান, ওই অভিযোগটি এখনো দেখি নাই। তবে বিষয়টি খোঁজ নিয়ে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।