ArabicBengaliEnglishHindi

গাইবান্ধায় শোক ও শ্রদ্ধায় জাতির পিতাকে স্মরণ করল আইনজীবীরা


প্রকাশের সময় : অগাস্ট ১৪, ২০২২, ৯:০৯ অপরাহ্ন / ৫৬
গাইবান্ধায় শোক ও শ্রদ্ধায় জাতির পিতাকে স্মরণ করল আইনজীবীরা

গাইবান্ধা প্রতিনিধি ->>
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে গাইবান্ধায় শোক ও শ্রদ্ধায় জাতির পিতাকে স্মরণ করল আইনজীবীরা। দিবসটি উপলক্ষে জাতীয় ও কালো পতাকা উত্তোলন, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন, শোকর‌্যালি, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে গাইবান্ধা জেলা বার এসোসিয়েশন।

 

মসজিদ নির্মাণ কাজে আর্থিক সাহায্যের আবেদন

 

রোববার (১৪ আগস্ট) সকালে বার ভবন চত্বরে জাতীয় ও কালো পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় দিনের কর্মসূচি। এরপর জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন আইনজীবীরা।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে একটি শোক র‌্যালি বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। র‌্যালিতে আইনজীবীরা ছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশ নেন। দুপুরে জেলা বার ভবনের নীচতলার হলরুমে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

গাইবান্ধা জেলা বার এসোসিয়েশন সভাপতি অ্যাড. আহসানুল করিম লাচুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. সিরাজুল ইসলাম বাবুর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন, জেলা ও দায়রা জজ মো. আবুল মনসুর মিঞা, অতিরিক্ত দায়রা জজ ফেরদৌস ওয়াহিদ, ভারপ্রাপ্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. নজরুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আবু খায়ের, অ্যাড. সুশীল কুমার ঘোষ, অ্যাড. ফারুক আহম্মেদ প্রিন্স, অ্যাড. আবু আলা সিদ্দিকুল ইসলাম রিপু, অ্যাড. নিরঞ্জন কুমার ঘোষ, অ্যাড. সারওয়ার হোসেন বাবুল প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, শুধুমাত্র স্বাধীনতা অর্জনই নয়, স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে সমহিমায় প্রতিষ্ঠা করতে বঙ্গবন্ধু নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে গেছেন।

বঙ্গবন্ধু রাজনৈতিক স্বাধীনতার পাশাপাশি জনগণের অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জনের লক্ষ্যে সারাজীবন সংগ্রাম করে গেছেন। ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত ‘সোনার বাংলা’ প্রতিষ্ঠাই ছিল তার স্বপ্ন।

বাঙালি ও বাংলাদেশের ইতিহাসে জাতির পিতার অবদান চিরদিন তাই স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে বলেও উল্লেখ করেন তারা আলোচনা সভা শেষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ১৯৭৫-এর ১৫ আগস্ট শাহাদাতবরণকারী বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্যসহ অন্যদের আত্মার মাগফিরাত কামনায় দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।

বিপুলসংখ্যক আইনজীবী ছাড়াও আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা দোয়া মাহফিলে অংশ নেন।