ArabicBengaliEnglishHindi

জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস’ উদযাপন উপলক্ষে লিগ্যাল এইড কমিটি বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ


প্রকাশের সময় : এপ্রিল ২৮, ২০২২, ১০:৩৮ অপরাহ্ন / ১৩১
জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস’ উদযাপন উপলক্ষে লিগ্যাল এইড কমিটি বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ

মারুফ আহমেদ ->>

‘জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস’ উদযাপন উপলক্ষে অত্র জেলা লিগ্যাল এইড কমিটি, মৌলভীবাজার বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করে। কর্মসূচীর মধ্যে ২৮ এপ্রিল ২০২২ খ্রিঃ তারিখ সকাল ৯.৩০ ঘটিকায় মৌলভীবাজার জেলা জজ আদালত প্রাঙ্গণ হতে বর্ণাঢ্য র‌্যালী, লিগ্যাল এইড মেলা, এবং আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

র‌্যালিতে অংশগ্রহণকারী সকলের মাঝে টি-শার্ট ও ক্যাপ বিতরণক্রমে এই দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় “বিনা খরচে নিন আইনি সহায়তা, শেখ হাসিনার সরকার দিচ্ছে এই নিশ্চয়তা” এই শ্লোগানের ব্যানার নিয়ে জেলা লিগ্যাল এইড কমিটির চেয়ারম্যান এবং জেলা ও দায়রা জজ আল-মাহমুদ ফায়জুল কবীর এর নেতৃত্বে অত্র জেলার বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, বিজ্ঞ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ, পুলিশ সুপার, বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, জজশীপ, ম্যাজিস্ট্রেসী ও জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও অন্যান্য সদস্যবৃন্দ, প্যানেল আইনজীবীবৃন্দ, জেলা লিগ্যাল এইড কমিটির সদস্যবৃন্দ, জেলা কারাগার ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা/কর্মচারীবৃন্দ, মৌলভীবাজার জেলা স্কাউট এর সদস্যবৃন্দ, মৌলভীবাজার জেলা শিল্পকলা একাডেমির সদস্যবৃন্দ, এনজিও প্রতিনিধি ও সদস্যবৃন্দ এবং স্থানীয় ও প্রত্যন্ত অঞ্চল হতে আসা দরিদ্র ও অসমর্থ বিচার প্রার্থীগণ নিয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক পদক্ষিণ করে র‌্যালিটি জেলা জেলা জজ আদালত প্রাঙ্গণে ফিরে আসে। র‌্যালির পর পরই জেলা জজ আদালত প্রাঙ্গণে জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস-২০২২ উপলক্ষে আয়োজিত লিগ্যাল এইড মেলা এর উদ্বোধন করেন জেলা কমিটির চেয়ারম্যান আল-মাহমুদ ফায়জুল কবীর, জেলা ও দায়রা জজ, মৌলভীবাজার। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট- মীর নাহিদ আহসান, বিজ্ঞ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট- মুহম্মদ আলী আহসান, বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ- মোহাম্মদ ফারুক উদ্দিন, পুলিশ সুপার- মোহাম্মদ জাকারিয়া, জেলা লিগ্যাল এইড অফিসার (ভারপ্রাপ্ত)- মুহাম্মদ জালাল উদ্দিন, বিজ্ঞ পাবলিক প্রসিকিউটর (পি.পি)- জনাব এডভোকেট রাধা পদ দেব সজল, বিজ্ঞ জি.পি- এডভোকেট মোঃ আব্দুল খালিক, সভাপতি, জেলা আইনজীবী সমিতি- এডভোকেট এ.এস.এম আজাদুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক, জেলা আইনজীবী সমিতি- এডভোকেট বদরুল হোসেন ।

র‌্যালীর পরপরই বিজ্ঞ অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সরকার হাসান শাহরিয়ার এর সঞ্চালনায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা কমিটির চেয়ারম্যান এবং জেলা ও দায়রা জজ আল-মাহমুদ ফায়জুল কবীর। উক্ত সভায় উপস্থিত ছিলেন বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, জজশীপ, ম্যাজিস্ট্রেসী ও জেলা প্রশাসনের বিচারক/কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ, জেলা লিগ্যাল এইড কমিটির সদস্যবৃন্দ, জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্যবৃন্দ, প্যানেল আইনজীবীবৃন্দসহ এনজিও প্রতিনিধি, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

প্রথমে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত ও গীতা পাঠের মধ্য দিয়ে আলোচনা সভার কার্যক্রম শুরু হয়। আলোচনা সভা শুরুর প্রাক্কালে বিজ্ঞ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, মৌলভীবাজার মুহম্মদ আলী আহসান স্বাগত বক্তব্য রাখেন। এডভোকেট এ.এস.এম আজাদুর রহমান সভাপতি, জেলা আইনজীবী সমিতি, মৌলভীবাজার, মোহাম্মদ জাকারিয়া, পুলিশ সুপার, মৌলভীবাজার, মীর নাহিদ আহসান, জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, মৌলভীবাজার, আল-মাহমুদ ফায়জুল কবীর, চেয়ারম্যান, জেলা লিগ্যাল এইড কমিটি এবং জেলা ও দায়রা জজ, মৌলভীবাজার বক্তব্য রাখেন।

বিজ্ঞ অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সরকার হাসান শাহরিয়ার এর উপস্থাপনায় আমাদের দেশের হত দরিদ্র ও সুবিধা বঞ্চিত জনগোষ্ঠির মাঝে আইনগত সহায়তার কার্যক্রম ব্যাপক প্রচারসহ জনগণের আইনগত অধিকার, দরিদ্র ও অসহায় জনগণের ন্যায় বিচার ও আইনি সেবা সম্পর্কে সচেতন করার জন্য উক্ত দিবসের উদ্দেশ্য ও তাৎপর্য তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন বিজ্ঞ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, মৌলভীবাজার জনাব মোহম্মদ আলী আহসান।

অত:পর বিজ্ঞ প্যানেল আইনজীবীগণের মধ্য হতে এই বছরের সেরা প্যানেল আইনজীবী হিসেবে সুরাইয়া খাতুন এডভোকেট এর নাম ঘোষণা করা হয় এবং তিনি চেয়ারম্যান, জেলা লিগ্যাল এইড কমিটি এবং জেলা ও দায়রা জজ এর কাছ থেকে সেরা প্যানেল আইনজীবী হিসেবে সম্মাননা ক্রেষ্ট গ্রহণ করেন। এই আলোচনা সভার সভাপতি তাঁর সমাপনি বক্তব্যে মাননীয় জেলা ও দায়রা জজ আল-মাহমুদ ফায়জুল কবীর বলেন, আমাদের দেশের বিপুল সংখ্যক জনগোষ্ঠি দারিদ্র্য সীমার নীচে বসবাস করছে। বাংলাদেশ সরকার আর্থিকভাবে অসচ্ছল, অসহায়, সহায়-সম্বলহীন দরিদ্র জনগোষ্ঠিকে আইন সহায়তা প্রদানের লক্ষ্যে ২০০০ সালে আইন সহায়তা প্রদান আইন প্রণয়ন ক্রমে জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা প্রতিষ্ঠা করেন। উক্ত সংস্থার অধীন ও তারই ধারাবাহিকতায় এদেশের দরিদ্র বিচারপ্রার্থী জনগণকে আইনি সহায়তা প্রদানের উদ্দেশ্যে প্রতিটি জেলাসহ উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে লিগ্যাল এইড কমিটি গঠন করে এই আইন সহায়তার কার্যক্রম বাস্তবায়িত হচ্ছে। সবল ও দূর্বলের আইনি লড়াইয়ের ক্ষেত্রে দূর্বলের পিছু হটার কোন কারণ নেই। মামলা করতে চাইলে জেলা আইনগত সহায়তা প্রদান কমিটি দূর্বলের পাশে দাঁড়াবে আইনি সেবা দেয়ার জন্য। আর্থিকভাবে অসচ্ছল, দরিদ্র ও অসমর্থ বিচারপ্রার্থী যে কোন ব্যক্তি সরকারী খরচে আইনি সেবা পাওয়ার জন্য উক্ত কমিটির পরমর্শ গ্রহণ করতে পারে। অসচ্ছল সহায় সম্বলহীন দরিদ্র দুঃস্থ জনগণের অধিকার ও ন্যায় বিচার পাওয়ার বিষয়ে আইনগত সহায়তা প্রদানের জন্য প্রত্যেক জেলায় একটি করে লিগ্যাল এইড কমিটি গঠিত আছে এবং প্রতিটি উপজেলায়সহ ইউনিয়ন পর্যায়ও লিগ্যাল এইড কমিটি রয়েছে।

সভাপতি তাঁর বক্তব্যে “বিনা খরচে নিন আইনি সহায়তা, শেখ হাসিনার সরকার দিচ্ছে এই নিশ্চয়তা” এই শ্লোগানটি উচ্চারণ করে বলেন, সরকার আইনগত সহায়তা প্রদান আইন, ২০০০ আরো কার্যকরভাবে প্রয়োগ করার উদ্দেশ্যে অসহায়, দরিদ্র বিচারপ্রার্থী জনগণকে আইনি পরামর্শ গ্রহণের পথকে সুগম করার লক্ষ্যে এবং বিকল্প পদ্ধতিতে বিবদমান পক্ষদ্বয়ের বিরোধ নিষ্পত্তির লক্ষে (আইনী পরামর্শ ও বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি) বিধিমালা ২০১৫ প্রণয়ন করেছে। উক্ত বিধিমালা প্রণয়নের ফলে অসহায় অসচ্ছল বিচারপ্রার্থী জনগণের আইনি পরামর্শ লাভের এবং বিকল্প পদ্ধতিতে বিরোধ নিষ্পত্তির অপার সম্ভাবনার দ্বার উন্মোক্ত হয়েছে। তিনি জানান জুন ২০১১ সাল থেকে ২০২২ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত মোট ৩,৪১৮ জনকে তাদের লিখিত আবেদনের ভিত্তিতে আইনগত সহায়তা প্রদান করা হয়েছ, একই সময়ের মধ্যে মোট ৩,২৭২টি মামলা দায়ের করা হয়েছ, এবং ইতোমধ্যে ২,৭১২টি মামলা নিষ্পত্তি হয়েছ, বর্তমানে বিচারাধীন আছে ৫৬০টি মামলা। এছাড়া, আইনগত পরামর্শ প্রদান সংক্রান্ত বিধান জারি হওয়ার পর ২০১৮ সাল থেকে ২০২২ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত মোট ২,২৮২ জনকে বিনামূল্যে আইনগত পরামর্শ দেয়া হয়েছে; এখানে উল্লেখ্য যে, সচ্ছল ও অসচ্ছল যেকোনো ব্যক্তি এই আইনগত পরামর্শ গ্রহণ করার সুযোগটি লিগ্যাল এইড অফিস এর মাধ্যমে বিনা মূল্যে গ্রহণ করতে পারেন। তাছাড়া লিগ্যাল এইড সংক্রান্ত বিধিমালা সংশোধন করে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তির প্রক্রিয়াটি লিগ্যাল এইড অফিসারের কার্যপরিধির মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করার মাধ্যমে জুলাই ২০১৮ থেকে মার্চ ২০২২ পর্যন্ত সময়ে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি সংক্রান্ত প্রাপ্ত মোট ৬৪৮টি আবেদনের মধ্যে ১৭৮টি সফলভাবে নিষ্পত্তি হয়েছ এবং এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে মোট ৩৬,৬৯,০০০/= (ছয়ত্রিশ লক্ষ ঊনসত্তর হাজার টাকা) “লিগাল এইড অফিস, মৌলভীবাজার” বিচারপ্রার্থীদেরকে আদায় করে দিতে সক্ষম হয়েছে।

বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তির প্রক্রিয়াটির অন্তর্নিহিত বৈশিষ্ট্যই হলো, দ্রুততম সময়ের মধ্যে একজন অসহায় ব্যক্তির আইনানুগ অধিকার প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি বিবদমান উভয় পক্ষকেই একই সাথে সন্তুষ্ট করার মাধ্যমে বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ বিরোধকে চিরতরে মীমাংসা করে দেওয়া যা বর্তমান মামলাজট নিরসনে এবং ভবিষ্যতে মামলা দায়েরের সম্ভাবনাকে কমিয়ে দেয় সরকারের আইন সহায়তা কার্যক্রম স্থানীয় ও প্রত্যন্ত অঞ্চলের অসহায় দরিদ্র জনগোষ্ঠির মাঝে পৌঁছে দেবার জন্য স্ব-স্ব অবস্থান থেকে ব্যাপক প্রচারসহ অসহায় ও দরিদ্র জনগণের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়ে উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন পূর্বক তিনি সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন।