ArabicBengaliEnglishHindi

ডাক বাক্স -এমদাদুল হক শ্রাবণ


প্রকাশের সময় : মে ১৩, ২০২২, ৭:০৭ অপরাহ্ন / ২৫৫
ডাক বাক্স -এমদাদুল হক শ্রাবণ

শহরের কিছু কিছু বাড়ির সামনে অযত্নে আজও রয়ে গেছে দু’একটা চিঠির বাক্স। রঙ হারিয়ে গেছে, শ্যাওলা জমে গেছে কোন কোনটায়… অনেক বছর আগে প্রযত্ন ঠিকানা গুলোয় নিয়মিত আসতো কারো চিঠি… বাড়ির বড় মেয়েটা লুকিয়ে বের করতো সেই চিঠি… বারবার করে পড়তো। জমিয়ে রাখতো ডায়েরীর ভাঁজে।

প্রণয় গড়িয়ে চিঠির প্রেরকের সাথে সাজানো সংসার হয়ে গেছে কারো কারো…! সেই সংসারের বয়স হয়তো দুই দশকের কাছাকাছি, আর কারো কারো হয়নি আল্পনায় আঁকা সংসার।

চিঠি গুলো কোথায়, কার কাছে…??
ডায়েরীর ভাঁজে পুরোনো হতে হতে নরম হয়ে গেছে কাগজের পাতা, বাদামী দাগ পড়ে গেছে। পুরোনো জিনিসপত্রের বাক্স খুলে কেউ কি পুরোনো চিঠি গুলো পাশাপাশি বসে একসাথে পড়ে কখনো??
যাদের কোন পরিণতি হয়নি, শেষমেষ হাতে রাখা হয়নি হাত, তারাও কি কোথাও সামলে রেখেছে চিঠি গুলোকে…?? একা নির্জনে এতোগুলো বছর পরেও কি কখনো মানুষটাকে মনে করে হঠাৎ করে দরজাটা লাগিয়ে ডায়েরীর ভাঁজ থেকে আলাদা করে চিঠি গুলোকে…?? জলে ভিজে যায় চোখ…??

চিঠি গুলোর খুব প্রয়োজন… মুমূর্ষু ভালোবাসাকে বাঁচানোর জন্যই চিঠি গুলোকে প্রয়োজন। গোটা গোটা অক্ষরে সাজিয়ে হলুদ খামে প্রেরক, প্রাপকের নাম লেখা চিঠি গুলো’ই পারবে মৃত্যু পথযাত্রী ভালোবাসাকে বাঁচিয়ে তুলতে।

একদিন কোন প্রেমিক আর তার প্রেমিকাকে চিঠি লিখবে না। সেদিন সন্ধ্যায় মরে যাবে ভালোবাসা। বেওয়ারিশ লাশের মতো পড়ে থাকবে কোন গলির কোণায়.. সবাই পাশ ঘেঁষে হেঁটে যাবে, ছুঁয়েও দেখবে না…!

দৈনিক পত্রিকায় কেউ বিজ্ঞাপণ লিখে দিক, পুরোনো ভালোবাসতে জানা মানুষগুলো যেন তাদের জীর্ণ শীর্ণ চিঠিগুলো দ্রুত দিয়ে যায়… এই শহরের মানুষ ভালোবাসতে যে ভুলে গেছে আজ।

মানুষ মাকড়সার জালের মতো সম্পর্কে জড়িয়ে আছে.. কিন্তু সেই সম্পর্কে ভালোবাসার বড্ড অভাব আজ !!

–এমদাদুল হক শ্রাবণ
(সাংবাদিক ও নাট্যনির্মাতা)
সিনিয়র রিপোর্টার (ক্রাইম)
দৈনিক জনতার বাংলা