ArabicBengaliEnglishHindi

নওগাঁয় সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসারের সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কে রাজি না হওয়ার হয়রানি করার অভিযোগ


প্রকাশের সময় : অক্টোবর ৪, ২০২২, ৮:৪৬ অপরাহ্ন / ১৮১
নওগাঁয় সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসারের সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কে রাজি না হওয়ার হয়রানি করার অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার ->>
নওগাঁয় সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসারের সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কে রাজি না হওয়ার হয়রানি করার অভিযোগ করা হয়েছে।

গত ২৫ সেপ্টেম্বর নওগাঁ সদর উপজেলার ১০১ নং সুলতানপুর উত্তর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আফরোজা রুমা তিনি লিখিত অভিযোগ করেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার বরাবর।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, আফরোজা রুমা ২১/০৬/১৯৯৯ইং সহকারি শিক্ষক হিসাবে চাকরিতে যোগদান করেন। যোগদানের পর থেকে তিনি নিষ্ঠার সঙ্গে শিক্ষকতা করে আসছেন। গত ২৮/০৪/২২ইং IPEMIS তথ্য আপলোড করার পর প্রোফাইলে ৯৯% তথ্য স্কোর দেখায়। কিন্তু গত ২১ সেপ্টেম্বর বদলীর জন্য আবেদন করার সময় IPEMIS তথ্য দেখতে পায় স্কোর ৫০%। যার ফলে বদলীর আবেদন করতে পারছিলেন না। সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার ওয়াহেদল্লাহ প্রামানিক উপজেলা শিক্ষা অফিসার এর পাসওয়ার্ড ক্লোন করে নওগাঁ সদর উপজেলার কর্মরত ও অভিযোগকারীর নিজের সহ আরো অনেকর প্রোফাইলে প্রবেশ করে আপলোডকৃত তথ্য মুছে দিয়ে সকলের সাথে প্রতারণা করছেন তিনি।

অভিযোগে আরো উল্লেখ করেন আফরোজা রুমা সহকারি শিক্ষক মো. মোরশেদ আলম বদলির জন্য আবেদন করতে গিয়ে ব্যর্থ হয়।কারণ কিছু সুবিধা পাওয়ার জন্য সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার ওয়াহেদল্লাহ প্রামানিক বদলির আবেদন করার অনলাইন সিস্টেম বন্ধ করে রেখেছিলেন। বিষয়টি সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার ওয়াহেদল্লাহ প্রামানিক কে জানাইলে তিনি পরে সেটি খুলে দেন তখন মো. মোরশেদ আলম আবেদন করতে পারেন। বর্তমানে বদলির আবেদন বন্ধ রাখার কারণে অভিযোগকারী সহকারী শিক্ষক আফরোজা রুমা বদলির জন্য আবেদন টি করতে পারছেন না।

উল্লেখ্য যে, সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার ওয়াহেদল্লাহ প্রামানিক ২০১৩ সাল থেকে সহকারী শিক্ষক আফরোজা রুমা নওগাঁয় বদলী হয়ে আসার পর থেকে বিভিন্ন রকম কুপ্রস্তাব ও তাঁর সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কে রাজি না হওয়ার কারণে। সে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্নভাবে সহকারী শিক্ষক আফরোজা রুমাকে হয়রানি করতে থাকে। সহকারী শিক্ষক আফরোজা রুমা বিধবা হয়ে যাওয়ার পর থেকে ওয়াহেদল্লাহ প্রামানিকের কুদৃষ্টি আরো বেশী পরে বিভিন্ন সময়ে রাস্তাঘাটে বিভিন্ন কুপ্রস্তাব ও অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে যেতে বলে। বিভিন্ন প্রলোভন তিনি দিতে থাকেন এবং অনেক সুযোগ-সুবিধা দেয়ার কথাও বলেন। তাঁর প্রস্তাবে রাজি না হওয়ার কারণে এখন হয়রানি করছেন।

এই বিষয়ে জেলা শিক্ষা অফিসে সকাল ১২টার সময় লিখিত অভিযোগ করেন সহকারী শিক্ষক আফরোজা রুমা। অভিযোগ কারার পর সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার ওয়াহেদল্লাহ প্রামানিক বদলীর জন্য বন্ধ রাখা ওয়েবসাইট চালু করে দেয়।