ArabicBengaliEnglishHindi

নীলফামারীতে ‘বর্ণমালা শিশু বিদ্যা নিকেতনের’ ২২ বছর পূর্তি ও ঈদ পূরর্মিলনী অনুষ্ঠিত


প্রকাশের সময় : মে ৮, ২০২২, ৪:৫৬ অপরাহ্ন / ৪৮
নীলফামারীতে ‘বর্ণমালা শিশু বিদ্যা নিকেতনের’ ২২ বছর পূর্তি ও ঈদ পূরর্মিলনী অনুষ্ঠিত

জিকে রউফ (নীলফামারী জেলা প্রতিনিধি)->>

অনেকদিন পর সহপাঠীদের কাছে পেয়ে আনন্দে উদ্বেলিত সবাই। ‘পুরানো সেই দিনের কথা ভুলবি কি রে হায়। ও সেই চোখে দেখা, প্রাণের কথা, সে কি ভোলা যায়…’। দিনভর সেই পুরনো দিনেরই স্মৃতিচারণ করলেন বর্ণমালা শিশু বিদ্যা নিকেতন প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা।

নীলফামারী সদরের টুপামারী ইউনিয়নের রামগঞ্জ বাজারস্ত অবস্থিত বর্ণমালা শিশু বিদ্যা নিকেতনের ২২ বছর পূর্তি ও ঈদ পুনর্মিলনীতে এই প্রথম পুরো স্কুল প্রাঙ্গন সেজেছিলো লাল-নীল বর্ণিল সাজে।

আজ বৃহস্পতিবার (০৫) সকাল ১০টায় স্কুল প্রাঙ্গণ থেকে বের করা হয় আনন্দর‌্যালি। সকাল ১১টায় স্কুল প্রাঙ্গণে মো. বাবুল হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে কোরআন তেলওয়াত ও গীতা পাঠের মাধ্যমে কেক কেটে অনুষ্ঠানের শুভো উদ্বোধন করেন মো. আবুজার রহমান, সভাপতি, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ, নীলফামারী সদর, নীলফামারী।

২০০১ সাল থেকে ২০২২ সালের প্রাক্তন ছাত্রছাত্রীরা একত্রিত হয়ে হারিয়ে যায় সেই পুরনো দিনে। নানান বয়সের প্রাক্তনদের আবেগ যেন একটু বেশিই ছিল। খুনসুটিতেও কেউ কাউকে ছেড়ে দেননি। তাদের আবেগ-স্মৃতিচারণ-আড্ডা ছুঁয়ে যায় বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ। আর গানের সেই কলির মতোই ‘প্রাণ জুড়াবে তাই’ এর মতোই দীর্ঘদিনের পুরনো বন্ধু, সতীর্থ, শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের পেয়ে প্রাণ জুড়িয়েই শেষ হয় পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান।

এসময় প্রধান অতিথি মো. আবুজার রহমান বলেন, ‘বর্ণমালা শিশু বিদ্যা নিকেতনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার মান অনেক ভালো। এই প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নের ব্যাপারে সবাইকে ভূমিকা রাখতে হবে। এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এগিয়ে নিতে প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষসহ আমি মাননীয় এমপি মহোদয়ের কাছে প্রতিষ্ঠান উন্নয়নের লক্ষ্যে কথা বলবো।

বর্ণমালা শিশু বিদ্যা নিকেতনের অধ্যক্ষ মো. শফিয়ার রহমান বলেন, আমার চাওয়ার ছিল এলাকার উন্নয়নের জন্য এই সমস্ত প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিয়া, এমনকি মানসম্মত শিক্ষার পরিবেশ তৈরি করাসহ বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ড অব্যাহত রাখা। সারা পৃথিবীতে যখন করনা মহামারীর প্রভাবে সব শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল তখন আমি ও আমার প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের নিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের বাসায় গিয়ে খোঁজ খবর নেয়া এবং বাড়িতে গিয়ে পড়া-লেখার মান সবসময় যাচাই করতাম। আমি বেঁচে থাকাকালীন যেন সর্বদায় পাশে থেকে এই প্রতিষ্ঠান মান উন্নয়ন সহ সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারি।

বর্ণমালা শিশু বিদ্যা নিকেতনের প্রাক্তন শিক্ষার্থী ২০০৩ ব্যাস মোঃ মোসলেম উদ্দিন মিঠু এডভোকেট জজ কোর্ট ঢাকা। তিনি বলেন, প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের পরিচয় বহন করে শিক্ষার্থীরা সফল হলে প্রতিষ্ঠান সামনের দিকে এগিয়ে নিতে শিক্ষার্থীদের সফল হতে হবে এটাই প্রতিষ্ঠান সেরা প্রাপ্তি সেরা অর্জন।

নীলফামারী জেলা কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়েশন এর সাধারণ সম্পাদক সুবাস রায় তার বক্তব্যে বলেন, বর্ণমালা শিশু বিদ্যানিকেতন নিলফামারীর একটি শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। গুণগত শিক্ষার মান উন্নয়নে বিশেষ ভূমিকা রাখছে।শিক্ষকদের অক্লান্ত পরিশ্রম এবং অধ্যক্ষ মহোদয়ের সুদক্ষ পরিচালনায় প্রতিষ্ঠানটি আগামীতে আরো এগিয়ে যাবে বলে আমরা বিশ্বাস করি।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, মো. ওয়াহীদ পারভেজ, মো. মোরসালিন সরকার, মো. রোকনুজ্জামান রওশন, মো. সামিউল ইসলাম মো. মোস্তাফিজুর রহমান।

সর্বশেষে মিঠু ও বিকাশের এর পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।