ArabicBengaliEnglishHindi

বকশিগঞ্জে প্রধান শিক্ষকের স্বেচ্ছাচারিতায় দের শতাধিক শিক্ষার্থীর ভবিষ্যৎ অনিশ্চিৎ


প্রকাশের সময় : সেপ্টেম্বর ১০, ২০২২, ৯:০৬ অপরাহ্ন / ১২১
বকশিগঞ্জে প্রধান শিক্ষকের স্বেচ্ছাচারিতায় দের শতাধিক শিক্ষার্থীর ভবিষ্যৎ অনিশ্চিৎ

বকশিগঞ্জ প্রতিনিধি ->>
জামালপুর জেলা বকশিগঞ্জ উপজেলার দাড়িয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের স্বেচ্ছাচারিতায় দের শতাধিক শিক্ষার্থীর ভবিষ্যৎ অনিশ্চয়তার অভিযোগ উঠেছে।

শিক্ষার আলো ছড়াতে ১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠা হয় দাড়িয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। বর্তমানে বিদ্যালয়টিতে মোট শিক্ষার্থী সংখ্যা ১শ ৫২ জন। শিক্ষক রয়েছে ৪ জন। বিদ্যালয়টিতে মোঃ আজাদ হোসেন প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদানের পর থেকে নানান অনিয়ম করে চলছে। বিদ্যালয়ে সঠিক সময়ে উপস্থিত না হয়েও হাজিরা বহিতে সময় জালিয়াতি করে আসছে। শ্রেণিকক্ষে পাঠদান পরিচালনা করার নিয়ম থাকলেও শিক্ষার্থীদের পাঠদানে ফাঁকি দিয়ে এসেছে। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি ও অন্যান্য শিক্ষকদের স্বাক্ষর জাল-জালিয়াতি করে বিদ্যালয় উন্নয়নের বরাদ্দকৃত অর্থ আত্মসাৎ করেছে। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তির টাকা নয় ছয় করে আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে।

এইনিয়ে গত ৮ সেপ্টেম্বর দাড়িয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আজাদ হোসেনের বিরুদ্ধে ক্লাস ফাঁকি, উপবৃত্তির টাকা আত্মসাৎ, বিদ্যালয়ের অন্যান্য শিক্ষক ও পরিচালনা কমিটির সদস্যদের স্বাক্ষর জালিয়াতির অভিযোগে ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী অভিভাবক এবং বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্যরা মানববন্ধন করেছে। মানববন্ধনে বক্তব্য রেখেছেন সাবেক প্রধান শিক্ষক মোঃ আব্দুস সামাদ, বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য মোঃ ইন্তাজ আলী, শিক্ষার্থী অভিভাবক মোঃ ফোটা মিয়া, মোঃ মজনু মিয়া, ইব্রাহিম মিয়া প্রমূখ।

মানববন্ধন শেষে বিক্ষুব্ধ জনতা প্রধান শিক্ষক আজাদ হোসেনকে তার অফিস কক্ষে ২ ঘণ্টা সময় পর্যন্ত অবরুদ্ধ করে রাখে। পরে বকশিগঞ্জ থানা পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে প্রধান শিক্ষককে উদ্ধার করে।

বিষয়গুলো নিয়ে দাড়িয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আজাদ হোসেন সাক্ষাতকারে জানিয়েছেন, আমি নিয়মিত বিদ্যালয়ে উপস্থিত হয়ে ক্লাস পরিচালনা করি। আমার বিরুদ্ধে যে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ এনেছে তা সঠিক নয়।