ArabicBengaliEnglishHindi

বকশীগঞ্জে রাস্তায় বেড়া দিয়ে পাঁচটি পরিবারকে অবরুদ্ধ


প্রকাশের সময় : জানুয়ারী ২৩, ২০২২, ৫:৫১ অপরাহ্ন / ৩৮১
বকশীগঞ্জে রাস্তায় বেড়া দিয়ে পাঁচটি পরিবারকে অবরুদ্ধ

জামালপুর জেলা প্রতিনিধি ->>

জামালপুরের বকশীগঞ্জে বাড়ির রাস্তা বাঁশের বেড়া দিয়ে বন্ধ করে দেওয়ায় ৭ মাস ধরে অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে পাঁচটি পরিবারের বৃদ্ধ, অন্তঃসত্ত্বা ও শিক্ষার্থীসহ প্রায় অর্ধশতাধিক মানুষ। তারা স্বাভাবিক চলাচলে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।

জানা গেছে , উপজেলার ধরারচর গ্রামের সহিজল হকের ছেলে এনামুল হকের সঙ্গে একই গ্রামের নুর নবীর পারিবারিক ঝগড়া বিবাদ হওয়ায় শত বছরের চলাচলের রাস্তাটি বাঁশের বেড়া দিয়ে বন্ধ করে দেয় এনামুল। ফলে ৫ পরিবারের স্বাভাবিক চলাচলের পথ বন্ধ হয়ে যায়। নারী ও শিশুসহ ৫০ জন সদস্য অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে। প্রয়োজনে অনেক পথ ঘুরে অতিকষ্টে চলাফেরা করে আসছেন অবরুদ্ধ পরিবারের বয়োবৃদ্ধ, অন্তঃসত্ত্বা ও শিক্ষার্থীরা।

বকশীগঞ্জের গোপালপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী রিমি আক্তার জানায়, আমাদের যাতায়াতের পথ বাঁশের বেড়া দিয়ে বন্ধ করে দেওয়ায় স্বাভাবিক চলাচলের পাশাপাশি নিয়মিত স্কুল কলেজে যাওয়ায় চরম বিঘ্ন ঘটছে। গ্রামের লোকজনকে বারবার বলার পরেও বিষয়টির কোন সমাধান হয়নি।

বৃদ্ধা মহিরন বেওয়া (৮০) বলেন, বাঁশের বেড়া দিয়ে আমাদের যাতায়াতের রাস্তাটি বন্ধ করে দিয়েছে প্রতিবেশী এনামুল হক। বেড়া খুলে না দিয়ে আরও বিভিন্ন হুমকি দিয়ে আসছে।তার হুমকির মুখে আমাদের পরিবারের লোকজন নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। যে কোন সময় প্রতিপক্ষরা আমাদের পরিবারের লোকজনকে বড় ধরণের ক্ষতি সাধন করতে পারে।

এ ব্যাপারে স্থানীয় বাসিন্দা আওয়ামী লীগ নেতা সুরুজ্জামান বলেন, বিষয়টি নিয়ে কয়েকবার গ্রাম্য শালিস বৈঠক হলেও কোন সমাধান সম্ভব হয়নি।

অভিযুক্ত এনামুল হক বলেন, যাতায়াতের পথ বন্ধ করা হয়নি। আমাদের জমিতে আমরা বাঁশের বেড়া দিয়েছি। কোন পরিবারকে অবরুদ্ধ করার জন্য বেড়া দেয়নি। নিজের পরিবারের নিরাপত্তার বিষয়টি চিন্তা করেই বাঁশের বেড়া দিয়েছি।

এ ব্যাপারে বকশীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুনমুন জাহান লিজা বলেন, কারো চলাচলের পথ বন্ধ করার অধিকার কারও নেই। অভিযোগ পেলে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।