ArabicBengaliEnglishHindi

বাচসাসের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বাদল-সম্পাদক রিমন


প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারী ২৭, ২০২২, ১:৩৮ অপরাহ্ন / ১২৬
বাচসাসের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বাদল-সম্পাদক রিমন
এস এম জীবন ->>
অগঠনতান্ত্রিক কর্মকাণ্ডের পরিপ্রেক্ষিতে বর্তমান কমিটির সভাপতি ফাল্গুনী হামিদ ও সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান বাবুর প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন করে তাদের অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। গত ২৫ ফেব্রুয়ারি এক সভা এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এক সভায় সর্বসম্মতিক্রমে সিনিয়র সহসভাপতি বাদল আহমেদকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সহসাধারণ সম্পাদক রিমন মাহফুজকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করা হয়। ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রিমন মাহফুজ স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়েছে।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২ তারিখ বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতির (বাচসাস) কার্যর্নির্বাহী কমিটির সাধারণ সম্পাদকের বরাত দিয়ে কিছু গণমাধ্যমে প্রকাশিত একটি সংবাদের প্রতি আমাদের দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়েছে। সাধারণ সম্পাদকের বরাত দিয়ে প্রকাশিত ওই সংবাদে বলা হয়, কার্যনির্বাহী পরিষদের ১০ জনের পদ শূন্য ঘোষণা করে নতুন ১০ জনকে কমিটিতে কো-অপ্ট করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। এই অগঠনতান্ত্রিক ও অসাংগঠনিক সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কার্যনির্বাহী কমিটির ১০ জন সিনিয়র সহসভাপতি বাদল আহমেদ, সহসাধারণ সম্পাদক রিমন মাহফুজ, সাংগঠনিক সম্পাদক রাহাত সাইফুল, আন্তর্জাতিক ও গবেষণা সম্পাদক শফিকুল আলম মিলন, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক মুজাহিদ সামিউল্লাহ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবু সুফিয়ান রতন, নির্বাহী পরিষদের সিনিয়র সদস্য লিটন এরশাদ, অনজন রহমান, লিটন রহমান ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২ এক সভায় মিলিত হয়।
ভারতে অবস্থানরত কার্যনির্বাহী সদস্য ইরানী বিশ্বাস সভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হন। সভায় সভাপতিত্ব করেন বর্তমান কার্যনির্বাহী কমিটির সিনিয়র সহসভাপতি বাদল আহমেদ। সভা পরিচালনা করেন সহসাধারণ সম্পাদক রিমন মাহফুজ।
সভার শুরুতে কার্যনির্বাহী কমিটির ১০ জনের  পদ বাতিলের সিদ্ধান্তের তীব্র নিন্দা জানানো হয়। ওই সিদ্ধান্তকে অবৈধ ঘোষণা করে এই অগঠনতান্ত্রিক কর্মকাণ্ডের পরিপ্রেক্ষিতে বর্তমান কমিটির সভাপতি ফাল্গুনী হামিদ ও সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান বাবুর প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন করে তাদের অব্যাহতি দেয়া হয়। সভায় সর্বসম্মতিক্রমে সিনিয়র সহসভাপতি বাদল আহমেদকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সহসাধারণ সম্পাদক রিমন মাহফুজকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করা হয়। সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, বর্তমান কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ব্যতীত অন্য পদের সবাই স্ব স্ব পদে বহাল থাকবেন। কমিটিতে যাদের কো-অপ্ট করা হয়েছে, তাদের কার্যনির্বাহী কমিটিতে অন্তর্ভুক্তি বাতিলের সিদ্ধান্তও নেয়া হয়েছে।
সভায় এ মর্মে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, এই কমিটি শিগগির আরও একটি সভায় মিলিত হবে এবং বাচসাস নীতিমালা অনুযায়ী বর্তমান কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যাওয়ায় এ ব্যাপারে সাধারণ সদস্যদের সঙ্গে নিয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে।