ArabicBengaliEnglishHindi

ভারতের নিউ জলপাইগুড়ি হতে চিলাহাটি দিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্য যাত্রীবাহী মিতালী এক্সপ্রেস


প্রকাশের সময় : জুন ১, ২০২২, ৮:২৮ অপরাহ্ন / ৪১
ভারতের নিউ জলপাইগুড়ি হতে চিলাহাটি দিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্য যাত্রীবাহী মিতালী এক্সপ্রেস

জিকে রউফ (নীলফামারী) ->>
দুই বাংলার চিলাহাটি–হলদিবাড়ী রেলপথ দিয়ে দীর্ঘ ৫৭ বছর পর সকল প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে চলাচল শুরু করলো যাত্রীবাহী ‘মিতালি ’। ভারতের নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশন থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা ট্রেনটি চিলাহাটি প্রবেশ করে দুপুর ২টা ১০ মিনিটে। ভারতীয় ট্রেন দেখতে উৎসুক জনতার ভিড় জমে চিলাহাটি স্টেশন এলাকায়।

বুধবার (১লা জুন) সকালে ভারতের রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব ও বাংলাদেশের এ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম সুজন যৌথভাবে ভার্চুয়ালি ট্রেনটির উদ্বোধন করেন। ভারতের নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশন থেকে চিলাহাটি অব্ধি ভারতীয় লোকোমেটিভ ও স্টাফদের দ্বারা পরিচালিত হয়েছে। এরপর ৩০ মিনিট যাত্রাবিরতির পর চিলাহাটি থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ৬৫০৮ লোকোমেটিভটি বাংলাদেশি ইঞ্জিন নিয়ে রওনা করে। ট্রেনটি বিরতিহীনভাবে ডোমার রেলওয়ে স্টেশন অতিক্রম করে দুপুর ৩টা ০৫ মিনিটে।

চিলাহাটি আন্তর্জাতিক রেলওয়ে স্টেশনের সহকারী মাস্টার ময়নুল হোসেন জানান, আজ ভারতীয় সময় বেলা পৌনে ১২টায় যাত্রা করে রাত সাড়ে ১০টায় মিতালি এক্সপ্রেস ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট রেলস্টেশন পৌঁছাবে। ট্রেনটি দুপুর ২টা ১০ মিনিটে চিলাহাটি এসে পৌঁছে ৩০ মিনিট বিরতি দিয়ে চেকপয়েন্টের জন্য এখানে ভারতীয় ইঞ্জিন পরিবর্তন করে বাংলাদেশের ইঞ্জিন সংযুক্ত হয়ে ট্রেনের ১০ কোচ নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। আগামীকাল বৃহস্পতিবার রাত ৯টা ৫০ মিনিটে মিতালি এক্সপ্রেস ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট রেলস্টেশন থেকে ছেড়ে একই পথে ভারতের নিউজলপাইগুড়ি স্টেশনে পৌঁছবে পরের দিন সকাল ৭টা ৫ মিনিটে।

করোনা মহামারীর কারণে ২০২১ সালের ২৭শে মার্চ ভার্চুয়ালি উদ্বোধন করে রেখেছিলেন দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদি। করোনা সংক্রমণ কমে যাওয়ায় সেটি এবার চালু হলো। দীর্ঘ ৫৫ বছর বন্ধ থাকার পর চিলাহাটি-হলদিবাড়ী রুটে পণ্যবাহী ট্রেন চলাচল শুরু হয় ২০২০ সালের ১৭ ডিসেম্বর। পরের বছর ২০২১ সালের ২৭ মার্চ এই রুটে প্রতীকী উদ্বোধন করা হয় যাত্রীবাহী ‘মিতালি এক্সপ্রেস’ ট্রেনটির। দুই দেশের সরকার প্রধান শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদি ট্রেনটির ভার্চুয়াল উদ্বোধন করলেও করোনার কারণে বন্ধ ছিল মিতালির চলাচল।

১৯৪৭ সালের অনেক আগে থেকেই এই পথে যাত্রীবাহী ও পণ্যবাহী ট্রেন চলাচল করত। সেসময় দার্জিলিং জেলার শিলিগুড়ি মহকুমা শহরে অবস্থিত নিউজলপাইগুড়ি (এনজিপি) রেলস্টেশন থেকে হলদিবাড়ী ও বর্তমানে বাংলাদেশের নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলার চিলাহাটি সীমান্ত দিয়ে নিয়মিত হুইসেল বাজিয়ে চলত দার্জিলিং মেইল ট্রেন। পাশাপাশি চিলাহাটি থেকে হলদিবাড়ী পর্যন্ত চলাচল করত শাটল ট্রেন।

রেলওয়ে সূত্রে জানা যায়, মিতালী এক্সপ্রেস ট্রেনের ভাড়া করসহ প্রতিটি এসিবাথ সিটে ৫ হাজার ২৫৫ টাকা, এসি সিটে ৩ হাজার ৪২০ টাকা এবং এসি চেয়ার ২ হাজার ৭৮০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। ট্রেনটি দিনে ৪৫৬ আসন এবং রাতে ৪০৮ আসন নিয়ে চলাচল করবে। ভারতের নিউ জলপাইগুড়ি (শিলিগুড়ি) থেকে ঢাকার মোট দূরত্ব ৫৩০ কিলোমিটার। এর মধ্যে ভারতীয় অংশে ৮৪ ও বাংলাদেশ অংশে ৪৪৬ কিলোমিটার। তবে কোনো স্টেশনে ট্রেনটি যাত্রী ওঠানো-নামানোর জন্য থামবে না। যারা এ ট্রেনের যাত্রী হবেন তারা ঢাকায় উঠে নামবেন জলপাইগুড়ি। আবার যেসব যাত্রী জলপাইগুড়ি থেকে এই ট্রেনে উঠবেন তারা নামতে পারবেন ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট রেলস্টেশনে।