ArabicBengaliEnglishHindi

সুইজারল্যান্ডকে হারিয়ে নক আউট পর্ব নিশ্চিত করতে চায় ব্রাজিল 


প্রকাশের সময় : নভেম্বর ২৮, ২০২২, ১২:২৩ অপরাহ্ন / ৩৪৫
সুইজারল্যান্ডকে হারিয়ে নক আউট পর্ব নিশ্চিত করতে চায় ব্রাজিল 

ক্রীরা প্রতিবেদক ->>
কাতার বিশ্বকাপের ফেবারিট ব্রাজিল আজ সোমবার বিশ্বকাপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে স্টেডিয়াম ৯৭৪’এ গ্রুপের আরেক বিজয়ী সুইজারল্যান্ডের মুখোমুখি হচ্ছে। দুই দলই যেহেতু প্রথম ম্যাচে জয় দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করেছে তাই আজকের ম্যাচে জিতে নক আউট পর্ব নিশ্চিতের লক্ষ্যেই মাঠে নামবে তারা।

দারুন পারফরমেন্স উপহার দিয়ে ব্রাজিল প্রথম ম্যাচেই সমর্থকদের প্রত্যাশা পূরনে অনেকটাই সফল হয়েছে। যদিও দলের সুপারস্টার নেইমার ডান গোঁড়ালির ইনজুরিতে পড়ে গ্রুপ পর্ব থেকে ছিটকে গেছেন। সার্বিয়ার বিরুদ্ধে ২-০ গোলের জয়ে অবশ্য নেইমার গোল পাননি। তিতের তুরুপের তাস টটেনহ্যাম হটস্পার তারকা রিচারলিসনই সেলেসাওদের এগিয়ে নিয়ে গেছেন। করেছের দুই গোল।

বিশ্বকাপের শুরুতেই তিতেসহ পুরো দলই ইঙ্গিত দিয়েছিল ব্রাজিল এখন আর শুধুমাত্র নেইমার নির্ভর নয়,তার প্রমান প্রথম ম্যাচেই মিলেছে। সে কারনেই আগের দুই বিশ্বকাপে যে চাপ নিয়ে নেইমার মাঠে নেমেছিলেন তার থেকেই অনেকটাই নির্ভার হয়ে এবার তিনি নেমেছিলেন। কিন্তু আবারো সেই ইনজুরি তার ছায়াসঙ্গী হয়েই থেকে গেল।

এবারের টুর্নামেন্টে ব্রাজিলের প্রথম ম্যাচের প্রতিপক্ষ সার্বিয়াকে ডার্ক হর্স হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছিল। কিন্তু সেলেসাওরা তাদের আধিপত্য দিয়ে সার্বিয়াকে দাঁড়াতেই দেয়নি। দ্বিতীয়ার্ধে রিচারলিসেনর জোড়া গোলে সার্বিয়া পরাজিত হয়। বিশ্বকাপের শুরুতে ব্রাজিলিয়ান ও ব্রিটিশ গণমাধ্যমে রিচারলিসনকে মূল একাদশে খেলানো নিয়ে যে আলোচনা শুরু হয়েছিল তার জবাব অনেকটাই দিয়ে দিয়েছেন ২৫ বছর বয়সী এই তারকা।

পুরো ব্রাজিল দলের ছন্দময় ফুটবলে সমর্থকরা তাদের প্রিয় দলকে ফাইনালে দেখার আশা করতেই পারেন। এর মাধ্যমে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা টানা আট জয় নিশ্চিত করেছে। ২০২১ কোপা আমেরিকার ফাইনালের পর থেকে তারা অপরাজিত রয়েছে। এই আট জয়ে ব্রাজিল ২৮ গোল দিয়েছে।

ব্রাজিল বেশ কিছু সুযোগ মিস করায় তা সার্বিয়ার জন্য সৌভাগ্য বয়ে এনেছে। অন্যদিকে সুইজারল্যান্ড তাদের প্রথম ম্যাচে ক্যামেরুনের বিরদ্ধে নিজেদের ভালই প্রমান করেছে। গোলরক্ষক ইয়ান সোমারকে খুব বেশী পরীক্ষায় ফেলতে পারেনি ক্যামেরুন। নতুন কোচ মুরাত ইয়াকিন সেই একই কৌশলে সুইসদের এগিয়ে নিয়ে গেছেন।

এই জয়ে ইয়াকিন সন্তুষ্ট হতেই পারেন, তার উপর দল কোন গোল হজম করেনি। শেষ ১০ ম্যাচে এনিয়ে দ্বিতীয়বার সুইজারল্যান্ড কোন গোল হজম না করে ম্যাচ শেষ করেছে। তবে সেই ম্যাচগুলোর বেশীরভাগই নেশন্স লিগে শীর্ষ দলগুলোর বিপক্ষে ছিল। ইউরো ২০২০’র বাছাইর্বে শেষ ছয়টি ম্যাচ সুইসরা মাত্র এক গোল খেয়েছিল। ঐ সময়ই ইয়াকিন দলের দায়িত্ব গ্রহন করেন। চার বছর আগে গ্রুপ পর্বে তারা ব্রাজিলের সাথে ১-১ গোলে ড্র করেছিল।

ক্যামেরুনের সাথে জয়ী হয়ে টানা চার ম্যাচে তারা অপরাজিত রয়েছে। এই জয়ে স্পেন ও পর্তুগালের মত দলও রয়েছে। ব্রাজিলের বিপক্ষে এই সংখ্যা পাঁচ করতে পারলে নক আউট পর্বও নিশ্চিত হয়ে যাবে। প্রথম ম্যাচের গোলদাতা বিল এম্বোলোর জন্য গোলের মুহূর্তটি ছিল অন্যরকম এক অনুভূতি। নিজের জন্মভূমির বিরুদ্ধে গোল করে তিনি দলকে প্রথম জয় উপহার দিয়েছেন।

এ দিকে গোঁড়ালির লিগামেন্ট ইনজুরিতে পড়ে গ্রুপ পর্ব মিস করা নেইমারের অনুপস্থিতিতে ব্রাজিল শিবিরে কিছুটা হলেও অস্বস্তি বিরাজ করছে। এ কারণে তিতেকে কিছুটা কৌশলগত পরিবর্তন আনতে হচ্ছে। মধ্যমাঠে ফ্রেডকে বদলী বেঞ্চ থেকে উঠিয়ে আনা হতে পারে। রাইট-ব্যাক ডানিলোও একই ইনজুরিতে ছিটকে গেছেন। এ কারণে অভিজ্ঞ ডানি আলভেসের সামনে সুযোগ আছে ২০১৪ সালের পর বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে মাঠে নামার। রিয়াল মাদ্রিদের এডার মিলিটাওয়ের ওপর রক্ষনভাগ সামলানোর দায়িত্ব আসতে পারে।