ArabicBengaliEnglishHindi

হঠাৎ পানি বৃদ্ধির কারণে হতাশায় কৃষক ও জনসাধারণ


প্রকাশের সময় : অক্টোবর ২৯, ২০২২, ৮:৫৬ অপরাহ্ন / ১৮০
হঠাৎ পানি বৃদ্ধির কারণে হতাশায় কৃষক ও জনসাধারণ

স্বপন সরকার,কালিয়াকৈর(গাজীপুর)প্রতিনিধি ->>

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলা সহ আশেপাশের এলাকায় হঠাৎ পানি বৃদ্ধির কারণে হতাশায় কৃষক ও জনসাধারণ। তুরাগ নদী, বংশাইনদী, খাল – বিল, নদী নালা,ডোবা কানাই কানাই পরিপূর্ণ পানিতে।কার্তিক মাসের শুরুর দিকে নদীতে খালে বিলে পানি শুকিয়ে যায়। কিন্তুু হঠাৎ করে নদীর পানি অতিরিক্ত বাড়াতে জনসাধারণ মানুষ বিপথগামী হচ্ছে।

কার্তিক মাসের শেষের দিকে, অগ্রাহায়ন মাসের শুরুতে বিলের কাচরা , নদীর ধার দিয়ে ধানের বীজ ( হালি)বপন করত । কিন্তুু অতিরিক্ত পানির কারনে সব যেন থমকে রয়েছে। কার্তিক মাসে সরিষা বপন করা হত ব্যাপক ভাবে বিলে অথবা প্রজেক্টর জমিতে।এখন সেই জমিতে তিন থেকে চারফিট পানি এখনো আছে।

কৃষকরা ও জনসাধারণরা কিভাবে সরিষা ও অন্যান্য সবজি চাষ করবে তা নিয়ে হতাশার শেষ নেই, একমাএ সৃষ্টি কর্তার দিকে সবাই তাকিয়ে আছে যেন এই বিপদ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। বাঁশতলী গ্রামের উৎপল দাস বলেন বাঁশ তলী গ্রামে রাস্তার দুইপাশেই কাতিক মাসে এই জমিতে সরিষা,বাধাকপি, ফুলকপি,সিম,টমেটো, চাষ করা হত ব্যাপক ভাবে কিন্তু এইসব জমিতে পানি এখনো অনেক থাকার কারনে সব চাষাবাদ বন্ধ, ফলে কৃষকরা ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

দিঘীবাড়ী গ্রামের জগদীশ সরকার বলেন অতিরিক্ত জল জমিতে থাকার কারনে সব চাষাবাদ বন্ধ ফলে বিপাকে চাষী ও জনসাধারণ।

রাজাবাড়ীর ইসমাইল হোসেন জানান,কাতিক মাসে আমরা জমিতে সরিষা ও সবজি চাষ করি। এখন সেই জমিতে তিন, চারফিট পানি এখন সেই জমিতে কিভাবে চাষ করব। বেঁচে থাকাটা এখন খুবই কষ্টকর হয়ে পড়ছে।

গুসাএার মহর আলী জানান দুই বিগা জমিতে লাউ চাষ করছি, লাউ প্রচুর পরিনামে ধরছে, কিন্তু জমিতে হঠাৎ পানি বৃদ্ধির কারণে সব ডুবে গেছে।ফলে ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি।

সৈয়দপুর গ্রামের মোকছেদ জানান, ধান চাষ কিভাবে করবো, এখনো (ধান) হালি ফালাতে পারি নাই।কতদিন যে পানি থাকবে তা আল্লাহ ছাড়া কেও জানে না। সরিষা বপন করার উপযুক্ত সময় কিন্তু জমিতে পানি অনেক।